বিয়ের রাত

ও, তুমি তাহলে আসসো।
হুম।তোমাকে অনেক সুন্দর লাগছে।
হু। বিয়ের শাড়ী পরলে সব মেয়েদেরকেই সুন্দর লাগে।
বিয়ে কখন?
এইতো একটু পর।বর পক্ষের লোকজন আসছে।
ওহ! ভাল।
বিয়ের রাত-MrTuhin

..
.
.
চ ল আমরা পালিয়ে যাই।
তোমার মাথা খারাপ। একটু পর তোমার বিয়ে।
তাতে কি হয়েছে, আমি তো বিয়ে করতে চাইনি।
আমাকে জোর করে বিয়ে দিতেছে।
আমি শুধু তোমাকে ভালবাসি।
 তোমার সাথে থাকতে চাই সারা জীবন।

তা আর সম্ভব না।আমি গরিব বলেই
তোমার বাবা আমাদের ভালবাসাকে মেনে নিতে পারেনি।
তাই তোমাকে অন্য একটা ছেলের সাথে বিয়ে দিতেছে।
তুমি ওখানে অনেক সুখি থাকবে তাই।ওর অনেক টাকা আছে,
 তোমার সব চাওয়া পাওয়া পূরণ করতে পারবে।

না, আমি কিছু চাইনা আমি শুধু তোমাকে চাই।
হু। পাগলামি করলে সব কিছু হয় না।
তোমার বাবা-মা পছন্দ করেই তোমার বিয়ে দিতেছে।
….
.
.
.
ওই তো। তোমার হবু জামাই এর গাড়ী চলে এসেছে।
ঘরে যাও।এতক্ষণ এখানে থাকলে কেউ দেখে ফেলবে।
ভাল থেকো।
আমার আর খোঁজ নিও না।
আমাকে নিয়ে চিন্তা করার দরকার নাই।
আমি গরিব আমি মরলে বা বাঁচলে কারো লোস বা লাভ নাই।
 চলে যাচ্ছি। ভাল থেকো।


এদিকে ফারিয়ার বাবা-মা, বাড়ির লোকজন ফারিয়াকে 
খুঁজেতেছে।তাকে খুঁজে পাচ্ছে না।

মেয়েটি গেলো কোথায়?

ফারিয়া কাঁদতে কাঁদতে শাড়ীটা খুলে গাছের ডালে
সাথে বেঁটে ফাঁস দেয়।
একটু পর হয়তো কেউ দেখেছিল গাছে জুলন্ত একটা লাশ।
কান্নায় ভরপুর হয়ে উঠেছিল বিয়ের বাড়িতে।
চলে গেল আরো একটি প্রাণ…………

ধন্যবাদ…….

Previous Post
Next Post
আমি তুহিন মিয়া।
অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। বাংলা সাহিত্য।
শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলি সরকারি কলেজ, গাজীপুর।
ফেসবুকের মাধ্যমে মতামত দিন

0 Post a Comment:

Mr. Tuhin